মার্কিন সেনাপ্রধানের সঙ্গে জেনারেল আজিজ আহমেদের সৌজন্য সাক্ষাৎ

সংগৃহীত ছবি

যুক্তরাষ্ট্র সফররত বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ মার্কিন সেনাপ্রধান ম্যাক কনভিলের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। এসময় তিনি দু’দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যকার সম্পর্ক আরও জোরদার এবং পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করছেন।

শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আইএসপিআরের বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী প্রধানের আমন্ত্রণে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ গত ২৯ জানুয়ারি ঢাকা ছাড়েন। মার্কিন সেনাপ্রধানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পাশাপাশি তিনি অফিস অব দ্য সেক্রেটারি অব ডিফেন্স ফর পলিসি সাউথ ও সাউথইস্ট এশিয়াতে আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা এবং দুই দেশের পারস্পরিক সামরিক সহযোগিতাবিষয়ক আলোচনায় অংশ নিয়েছেন। তিনি মার্কিন সেনাবাহিনীর বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র পরিদর্শন করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে জেনারেল আজিজ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের মিলিটারি অ্যাডভাইজার এবং আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেলদের সঙ্গেও মতবিনিময় করছেন। শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি, বিভিন্ন শান্তিরক্ষা মিশন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা এবং নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে এ সফর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়েছে।

সফর শেষে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরবেন।

Sponsored Post Learn from the experts: Create a successful blog with our brand new courseThe WordPress.com Blog

WordPress.com is excited to announce our newest offering: a course just for beginning bloggers where you’ll learn everything you need to know about blogging from the most trusted experts in the industry. We have helped millions of blogs get up and running, we know what works, and we want you to to know everything we know. This course provides all the fundamental skills and inspiration you need to get your blog started, an interactive community forum, and content updated annually.

এসএসসি-এইচএসসির সংশোধিত সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ

প্রতীকী ছবি

২০২১ সালের এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার সংশোধিত সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করা হয়েছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের তৈরি এই পুনর্বিন্যাসকৃত পাঠ্যসূচি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের আওতাধীন সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষককে পাঠানো হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এটি চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। আজ শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সেটি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য নতুন করে তৈরি করা সিলেবাসের চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আমরা এটি ঢাকা শিক্ষাবোর্ডে পাঠিয়েছি।

এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি এসএসসির সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করেছিল ঢাকা শিক্ষাবোর্ড। যা নিয়ে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আপত্তি ওঠে। প্রকাশিত সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তিন বা চার মাসের মধ্যে শেষ করা সম্ভব নয় বলে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান।

এনসিটিবি সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ জানুয়ারি এনসিটিবিতে কারিকুলাম বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সেখানে কর্মকর্তাদের এসএসসির ৬০ দিন এবং এইচএসসির ৮৪ দিনের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস করার নির্দেশ দেন।

ওই বৈঠক শেষে শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, আগামী ৯ মে এসএসসির এবং ১৫ জুন এইচএসসির সব ক্লাস শেষ করতে হবে এবং জুনে এসএসসি ও জুলাই বা আগস্টে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে। এ সময়ের মধ্যে যতটুকু পড়ানো যাবে ততটুকু সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করা হবে। এ সংক্ষিপ্ত সিলেবাস থেকে পরীক্ষায় প্রশ্ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হবে।

শিক্ষামন্ত্রীর এমন নির্দেশনার পর এসএসসি-এইচএসসির প্রত্যেকটি শ্রেণিতে দুদিন করে ওয়ার্কশপ করে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের কাজ মঙ্গলবার শেষ করেন এনসিটিবির বিশেষজ্ঞরা। এর আগে গড়ে ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ সিলেবাস কমানো হয়েছিল। সেটি নিয়ে নানা মহলে বিতর্ক উঠলে পরবর্তীতে সিলেবাস আরও সংক্ষিপ্ত করার উদ্যোগ নেয়া হয়। এবার সিলেবাস প্রায় ৫০ শতাংশ কমানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। 

ওটিটি আলিয়ার সিনেমা কিনল ৭০ কোটিতে

Loading
ফাইল ছবি

ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো আয়ের নতুন দরজা খুলে দিয়েছে। একটি ছবির আয়ের মূল উৎস ছিল সিনেমা হল ও টেলিভিশন স্বত্ব। এবার নতুন করে যুক্ত হয়েছে ওটিটি। এই প্ল্যাটফর্ম থেকেও মোটা অঙ্কের টাকা আয় করা যাবে সিনেমা দিয়ে। এই যেমন ‘গাঙ্গুবাই কাঠিয়াবাড়ি’ ছবিটা দেখুন না। মুক্তি পাওয়ার আগেই ছবিটি বিক্রি হলো মোটা অঙ্কের বিনিময়ে।

এই মুহূর্তে আলিয়া ভাটের ঝোলাভর্তি সিনেমা। সম্প্রতি অভিনয় করেছেন সঞ্জয় লীলা বানসালির ছবি ‘গাঙ্গুবাই কাঠিয়াবাড়ি’ সিনেমাতে। এটি এখনো মুক্তি পায়নি সিনেমা হলে। ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, এই ছবির ওটিটি স্বত্ব বিক্রি করার চুক্তি হয়েছে ৭০ কোটি রুপিতে। তবে কোন ওটিটিতে দেখানো হবে, তা জানা যায়নি।

ছবি মুক্তি পাওয়ার পর ছবির সফলতার ওপর নির্ভর করে ওটিটিতে স্বত্ব বিক্রির বিষয়টি। কিন্তু ছবি মুক্তির আগেই এত দামে ছবির ওটিটি স্বত্ব বিক্রিতে অনেকেই অবাক হয়েছেন। কেউ কেউ দেখছেন সিনেমার জন্য বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে।

বলা হচ্ছে, তারকা অভিনয়শিল্পীদের অংশগ্রহণ আর বানসালির মতো পরিচালকের ছবি হওয়ায় এত চড়া দামে বিক্রি হয়েছে সিনেমাটি।

ছবিটি গাঙ্গুবাই কোঠেওয়ালির জীবন থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বানানো হচ্ছে। কামাঠিপুরার যৌনপল্লির প্রধান গাঙ্গুবাই।

ছবিটিতে অতিথি চরিত্রে আছেন অজয় দেবগন, এমরান হাশমি ও হুমা কুরেশি। সম্প্রতি ছবির শুটিংয়ে ঝামেলা হয়েছিল। গাঙ্গুবাই পরিবারের এক সদস্য ছবিটির গল্প নিয়ে আপত্তি জানিয়ে এর বিরুদ্ধে মুম্বাই সিভিল কোর্টে মামলা ঠুক দেন।

সাংবাদিক হুসাইন জাইদির ‘মাফিয়া কুইনস অব মুম্বাই’ বইয়ে গাঙ্গুবাইকে নিয়ে লেখা হয়েছে। সেখান থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই বানানো হচ্ছে ছবিটি। আলিয়া এখন ব্যস্ত বেশ কয়েকটি সিনেমা নিয়ে।

‘ব্রহ্মাস্ত্র’ সিনেমাতে তাঁকে দেখা যাবে প্রেমিক রণবীর কাপুরের সঙ্গে। আর ‘ট্রিপল আর’-এ তাঁকে দেখা যাবে রামচরণ ও জুনিয়র এনটিআরের সঙ্গে।

আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারী সরস্বতী পূজা

প্রতীকী ছবি

আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারী রোজ মঙ্গলবার সারাদেশে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিদ্যারদেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

আফগানিস্তানে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার না হলে ‘ভয়াবহ যুদ্ধের’ হুমকি তালেবানের

সংগৃহীত ছবি

আফগানিস্তান থেকে আগামী মে মাসের মধ্যে সব মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা না হলে ‘ভয়াবহ যুদ্ধের’ হুমকি দিয়েছে তালেবান। এই গোষ্ঠী ওয়াশিংটনকে হুমকি দিয়ে বলেছে, তাদের সঙ্গে মার্কিন সরকারের স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী সেনা প্রত্যাহার করা না হলে ‘সংঘর্ষের ভয়ঙ্কর বিস্তার’ ঘটবে।

তালেবান শুক্রবার নিজেদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক সতর্কবার্তায় এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে যার শিরোনাম হচ্ছে- ‘আগ্রাসী সেনাদের প্রত্যাহারের তারিখ নবায়ন করা হলে যা হবে।’ তালেবান সতর্ক করে দিয়ে আরো বলেছে, “দোহা চুক্তি লঙ্ঘন করা হলে বড় আকারের যুদ্ধ শুরু হবে যার সম্পূর্ণ দায় নিতে হবে মার্কিন প্রশাসনকে।”

সম্প্রতি মার্কিন কংগ্রেসের ‘আফগান স্টাডি গ্রুপ’ এক প্রতিবেদনে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের সময়সীমা বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। তালেবানের সতর্কবার্তায় ওই প্রতিবেদনের প্রতি ইঙ্গিত করা হয়।

কাতারের রাজধানী দোহায় ২০২০ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি কথিত এক শান্তিচুক্তিতে সই করে তালেবান ও যুক্তরাষ্ট্র। ওই চুক্তিতে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সেনা প্রত্যাহারের কথা বলা হলেও এখন পর্যন্ত সে প্রতিশ্রুতি পূরণ করা হয়নি।

পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালালো ইরান

শুক্রবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১।


পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালালো ইরান

পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালালো ইরান। মঙ্গলবার গভীর রাতে পাকিস্তানে এই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালায় ইরান। ভারতের পর এই প্রথম অন্য কোনো দেশ পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালালো।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে’র বরাতে জানা যায়, ইরান রিভলিউশনারি গার্ডের কিছু জওয়ান পাকিস্তানে গোপন অভিযানে গিয়েছিলেন। সেখানে বালোচ জঙ্গিদের কবলে পড়েন ইরানের সেনারা। খবর পাওয়ার সাথে সাথেই প্রস্তুত হতে শুরু করে ইরান। একেবারে ভারতের কৌশলেই পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালায় তারা। বালোচ জঙ্গিদের আস্তানায় আক্রমণ চালিয়ে দুই জওয়ানকে মুক্ত করে নিয়ে এসেছে ইরানের সেনারা।

২০১৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর বালোচ প্রদেশ ও ইরানের সীমান্ত থেকে পাকিস্তানের জঈশ-অল-অদ্ল নামের এক জঙ্গি সংগঠন দুই জওয়ানকে অপহরণ করে পাকিস্তান। গুপ্তচরের মাধ্যমে প্রথমে ওই দুই সৈনিকের খোঁজ নেয় ইরানি সেনা। বেশ কয়েকজন সেনা কর্মকর্তাও এই সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে অংশ নিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে ইরানের একাধিক সংবাদমাধ্যম। তবে পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নতুন কিছু নয়। এর আগেও ভারত ও আমেরিকার সেনা পাকিস্তানের মাটিতে জঙ্গি নিধন করেছে।

সিস্তান-বেলুচিস্তানের মির্জাবেহ সীমান্ত থেকে ১৪ জন ইরানি সেনাকে অপহরণ করেছিল জঈশ-অল-অদ্ল সংগঠনের জঙ্গিরা। সেই বছরই ১৫ নভেম্বর পাঁচজন সেনাকর্মীকে মুক্তি দিয়েছিল তারা। ২০১৯ সালে আরও চারজন সেনাকে মুক্ত করে জঙ্গিরা। একাধিক আন্তর্জাতিক গুপ্তচর সংস্থা এই জঙ্গি সংগঠনকে মদদ দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছিল ইরান।

একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ বিশিষ্টজন

শুক্রবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। __________________________

একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ বিশিষ্টজন
ফাইল ছবি

বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দেশের ২১ বিশিষ্ট নাগরিককে ২০২১ সালের একুশে পদক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। গতকাল বৃহস্পতিবার সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।


পদক পাওয়া বিশিষ্টজনেরা হলেন, ভাষা আন্দোলনে (মরণোত্তর) মোতাহার হোসেন তালুকদার (মোতাহার মাস্টার), শামছুল হক (মরণোত্তর) ও অ্যাডভোকেট আফসার উদ্দীন আহমেদ (মরণোত্তর), শিল্পকলার সংগীতে পাপিয়া সারোয়ার, অভিনয়ে রাইসুল ইসলাম আসাদ, সালমা বেগম সুজাতা (সুজাতা আজিম), নাটকে আহমেদ ইকবাল হায়দার, চলচ্চিত্রে সৈয়দ সালাউদ্দীন জাকী, আবৃত্তিতে ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, আলোকচিত্রে পাভেল রহমান, মুক্তিযুদ্ধে গোলাম হাসনায়েন, ফজলুর রহমান খান ফারুক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দা ইসাবেলা (মরণোত্তর), সাংবাদিকতায় অজয় দাশগুপ্ত, গবেষণায় অধ্যাপক সমীর কুমার সাহা, শিক্ষায় মাহফুজা খানম, অর্থনীতিতে মির্জা আবদুল জলিল, সমাজসেবায় অধ্যাপক কাজী কামরুজ্জামান, ভাষা ও সাহিত্যে কবি কাজী রোজী, বুলবুল চৌধুরী ও গোলাম মুরশিদ।

কারাবন্দীর নারীসঙ্গ: জেল সুপারসহ ১১ জন বরখাস্ত

শুক্রবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। __________________________

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার
কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার। ফাইল ছবি

গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-১–এর জ্যেষ্ঠ জেল সুপার, জেলার ও ডেপুটি জেলারসহ ১১ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া আরও সাতজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হল-মার্কের কারাবন্দী মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমদ বিধি লঙ্ঘন করে এক নারীর সঙ্গে সময় কাটানোর ঘটনায় এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ওই সময় কারাগারের দায়িত্বে ছিলেন তাঁরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ–সংক্রান্ত চিঠি কারা অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। সুরক্ষা সেবা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বরখাস্ত করা হয়েছে তখনকার জ্যেষ্ঠ জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা এবং ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েনকে। বরখাস্ত অন্যদের মধ্যে ছয়জন কারারক্ষী, একজন সহকারী প্রধান কারারক্ষী ও সার্জেন্ট ইনস্ট্রাক্টর রয়েছেন।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বৃহস্পতিবার রাতে জানান, এ ঘটনায় গঠিত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তাঁরা প্রতিবেদনটি পর্যালোচনা করে তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন।

গত বুধবার তদন্ত কমিটি তদন্ত কমিটি সুরক্ষা বিভাগের সচিবের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। কমিটির প্রধান অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক আবরার হোসেন জানিয়েছেন, তারা এখনো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ–সংক্রান্ত চিঠি পাননি। তিনি বলেন, ‘সন্ধ্যার পর পাঠিয়েছেন বলেই হয়তো, তবে আমি দেখিনি। তবে আমরা ৪৯ পৃষ্ঠার একটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছিলাম। যেখানে ১৮ কর্মকর্তা ও কারারক্ষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।’

এর আগে গত ২১ জানুয়ারি তিন সদস্যের এ তদন্ত কমিটি গঠন করে কারা কর্তৃপক্ষ। কমিটি তদন্ত প্রতিবেদনে ১৮ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা, চাকরিবিধি অনুযায়ী শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া, বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া, কেন্দ্রীয় কারাগারের পরিবর্তে জেলা কারাগারে পদায়ন করা, কম গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পদায়ন করাসহ ২৫টি সুপারিশ করেছে।

বর্তমানে কাশিমপুর-১ কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা, ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েন কারা অধিদপ্তরে সংযুক্ত আছেন। তদন্ত শুরুর পর তাঁদের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে প্রত্যাহার করে কারা অধিদপ্তরে সংযুক্ত করা হয়।

গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে বন্দী হল-মার্কের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) তুষার আহমদ বিধি লঙ্ঘন করে এক নারীর সঙ্গে সময় কাটান। এতে কারাগারের দুই কর্মকর্তা সহযোগিতা করেন বলে অভিযোগ ওঠে।

গত ৬ জানুয়ারি কারাগারের ক্লোজড সার্কিট টেলিভিশনের (সিসিটিভি) ক্যামেরায় এ চিত্র ধরা পড়ে। ঘটনার তদন্তে জেলা প্রশাসন গত ১২ জানুয়ারি তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে। ওই কমিটিও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসনের গঠিত কমিটি।

কারা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ ঘটনা ছাড়া আরও অনেক অনিয়ম পেয়েছে কমিটি। এ ধরনের ঘটনা বন্ধে কারাগারে স্বজন বা স্ত্রীর সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ বৈধ করা যায় কি না, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। এ ছাড়া সারা দেশের কারাগারগুলোয় সিসি ক্যামেরা বসানো এবং সেই সিসি ক্যামেরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তদারক করার সুপারিশ করা হয়েছে।

৬ জানুয়ারির সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, কারাগারের ভেতরে কর্মকর্তাদের অফিস এলাকায় কালো রঙের জামা পরে ঘোরাফেরা করছেন তুষার আহমদ। কিছু সময় পর বাইরে থেকে বেগুনি রঙের জামা পরা এক নারী সেখানে আসেন। এ সময় কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার রত্না রায় ও ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েন সেখানে ছিলেন।

দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটে দুই যুবকের সঙ্গে ওই নারী কারাগারের কর্মকর্তাদের কক্ষের দিকে যান। সেখানে ওই নারীকে ডেপুটি জেলার সাকলায়েন স্বাগত জানান। ওই নারী কক্ষে ঢোকার পর সাকলায়েন বেরিয়ে যান। আনুমানিক ১০ মিনিট পর তুষারকে সেখানে নিয়ে যান সাকলায়েন। এর প্রায় ১০ মিনিট পর রত্না তাঁর কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান। দুই মিনিট পর রত্নার কক্ষের দিকে যান তুষার। আরও দুই মিনিট পর সেখান থেকে বেরিয়ে ওই নারীকে নিয়ে আবার রত্নার কক্ষে যান তুষার। যাওয়ার সময় তাঁদের হাসি-তামাশা করতে দেখা যায়। এর দুই মিনিট পর তুষার ও ওই নারী সাকলায়েনের কক্ষে ফেরেন। প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা পর তাঁরা বের হন।

একনেকে ১১,৩২৪ কোটি টাকার ৮ প্রকল্প অনুমোদন

সংগৃহীত ছবি

১১ হাজার ৩২৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে আটটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এসব খরচের মধ্যে সরকার দেবে ৫ হাজার ১৪০ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। আর বিদেশি ঋণ ৬ হাজার ১৬৫ কোটি ৮২ লাখ এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ১৮ কোটি ১২ লাখ টাকা।

বুধবার প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অবস্থান নিয়ে বৈঠকে অংশ নেন। একনেক সভা শেষে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

পরিকল্পনামন্ত্রীর তথ্যমতে, একনেকে অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে দুটি সংশোধিত এবং ছয়টি নতুন। তার মধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘পল্লী সড়কে গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পের প্রথম সংশোধন অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ছিল ৩ হাজার ৯২৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। প্রথম সংশোধনীতে ২ হাজার ৫৩০ কোটি ৪৩ লাখ টাকা খরচ বৃদ্ধি করে করা হয়েছে ৬ হাজার ৪৫৭ কোটি ১৯ লাখ টাকা। প্রকল্পটি ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করার কথা ছিল। এখন প্রকল্পটির মেয়াদ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘ঢাকা এনভায়রনমেন্টালি সাসটেইনেবল ওয়াটার সাপ্লাই’ প্রকল্পের প্রথম সংশোধন অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ছিল ৫ হাজার ২৪৮ কোটি ৬ লাখ টাকা। সংশোধনীতে প্রকল্পটির খরচ ২ হাজার ৯০৩ কোটি বাড়িয়ে করা হয়েছে ৮ হাজার ১৫১ কোটি ৭ লাখ টাকা। ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে শুরু হওয়া প্রকল্পটি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে শেষ হওয়ার কথা ছিল। এখন তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত।

স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘টাঙ্গাইল জেলার ১০টি পৌরসভার অবকাঠামো উন্নয়ন’ প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে খরচ হবে ২৭২ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ‘যানবাহন চালনা প্রশিক্ষণ’ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ১০৫ কোটি ৯৪ লাখ টাকা খরচে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ‘তৃণমূল পর্যায়ে অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে নারী উদ্যোক্তাদের বিকাশ সাধন’ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে খরচ করা হবে ৪২৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৫ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ‘ডিজিটাল উদ্যোক্তা এবং উদ্ভাবন ইকো-সিস্টেম উন্নয়ন’ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে খরচ করা হবে ৩৫৩ কোটি ৬ লাখ টাকা। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৫ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ৪ হাজার ৩৪৭ কোটি ২১ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৫ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

বিদ্যুৎ বিভাগের ‘হাতিয়া দ্বীপ, নিঝুম দ্বীপ ও কুতুবদিয়া দ্বীপ শতভাগ নির্ভরযোগ্য ও টেকসই বিদ্যুতায়ন’ প্রকল্পটি ৩৮৪ কোটি ৩৬ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২৩ সালের জুন মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

আল-জাজিরার প্রতিবেদন : সরকারের ব্যাখার অপেক্ষায় বিএনপি

বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১। _____________________________

al jazira_bnp
প্রতীকী ছবি

কাতারভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল আলজাজিরায় ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে প্রচারিত প্রতিবেদন সম্পর্কে বাংলাদেশ সরকারের ‘গ্রহণযোগ্য’ ও ‘বিশ্বাসযোগ্য’ ব্যাখ্যার অপেক্ষায় রয়েছে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি।

আজ বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ওই বিবৃতি পাঠান।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘গত ১ ফেব্রুয়ারি আলজাজিরা ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যা বাংলাদেশের আপামর জনগণকে বিব্রত ও উৎকণ্ঠিত করেছে। জনগণের ওই অনুভূতির সঙ্গে বিএনপিও গভীরভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করছে।’

রিজভী বলেন, ‘জনগণের কাছে সুনির্দিষ্টভাবে প্রতিটি অভিযোগের প্রকৃত ব্যাখ্যা দেওয়ার বদলে সরকার তার প্রতিবাদ বিবৃতিতে কেবল রাজনৈতিক বক্তব্যের আড়ালে তা নাকচ করার চেষ্টা করেছে— যা জনগণকে আরো বেশি উদ্বিগ্ন করেছে ও প্রচারিত অভিযোগ সম্পর্কে তাদের উৎকণ্ঠাকে আরো ঘনীভূত করেছে।’

তিনি বলেন, ‘এ দেশের মানুষের সঙ্গে বিএনপিও ওই প্রতিবেদনে উল্লেখিত প্রতিটি বিষয় সম্পর্কে সরকারের নিকট থেকে গ্রহণযোগ্য ও বিশ্বাসযোগ্য ব্যাখ্যা পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে।’

উল্লেখ্য, গত ১ ফেব্রুয়ারি কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরা ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এটিকে মিথ্যা, সম্মানহানিকর এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রচারণা বলে অভিহিত করেছে।

সরকারের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে, চরমপন্থি গোষ্ঠী ও তাদের সঙ্গে সম্পর্কিত কুখ্যাত ব্যক্তিরা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত যে অপপ্রচার চালিয়ে আসছে, এটি তারই অংশ ছাড়া আর কিছুই নয়।

সত্য সংবাদ প্রকাশে আপোষহীন

Create your website with WordPress.com
শুরু করুন